মুমিনের গুণ

যে সকল গুণ ও অবস্থা অর্জন করা ঈমানদারের জন্য আবশ্যকীয় করা হয়েছে তা নিম্নরূপ :

১. আল্লাহ পাকের মুহাববত সব কিছুর উপরে প্রবল হতে হবে।

২. অন্তরের অবস্থা এমন হতে হবে যে, যখন আল্লাহ পাককে স্মরণ করবে তখন যেন তার অন্তরে আল্লাহ পাকের ভয় সৃষ্টি হয় এবং অন্তর কেঁপে উঠে।

৩. যখন আল্লাহ পাকের আয়াত তেলাওয়াত করা হয় তখন যেন ঈমানের নূর বৃদ্ধি পায়।

৪. আল্লাহ পাকের উপর ভরসা করবে। আর এটাই হবে তাদের জীবনের সবচেয়ে বড় অবলম্বন।

৫. তারা সর্বদা আল্লাহ পাকের বড়ত্ব ও মহত্ত্বের অনুভূতিতে ভীত-সন্ত্রস্ত থাকবে।

৬. আল্লাহ পাকের ভয় তাদের  অন্তরে প্রবল হবে। এমনকি নেক কাজ করার সময়ও তারা এই ভেবে ভীত সন্ত্রস্ত থাকবে যে, আমাদের এই কাজ আল্লাহ পাকের দরবারে কবুল হবে তো।

৭. কুরআনুল কারীম তেলাওয়াতকালে অথবা তেলাওয়াত শ্রবণকালে তাদের শরীর কেঁপে উঠবে। তাদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ এবং অন্তর আল্লাহর স্মরণে বিনীত হয়ে যাবে।

৮. তারা সর্বাবস্থায় আল্লাহকে স্মরণ করবে, কোনো অবস্থাতেই অমনোযোগী হবে না।

৯. সকল সম্পর্ক ছিন্ন করে সকল অবস্থায় আল্লাহর দিকে মনোযোগী হওয়াই হবে তাদের বৈশিষ্ট্য।

শুধু পবিত্র কুরআনই নয়, সহীহ হাদীসসমূহেও স্পষ্ট ও পরিষ্কারভাবে ঐ সকল গুণ ও বৈশিষ্ট্যের কথা বলা হয়েছে, যার দ্বারা ঈমান পূর্ণতা লাভ করে।